Posted on

How to grow Online E-commerce Business in Bangladesh

Online shopping in Dhaka, wali bazar.com

How to grow Online E-commerce Business in Bangladesh

Low-cost Big sale

1.Viral marketing for Online E-commerce :

  1. a) which public more share
  2. b) Name change- Uncommon Name
  3. c) shock to the public for viral

 

2.Presume Marketing for Online E-commerce :How to grow Online E-commerce Business in Bangladesh

  1. a) product unusual display which public attention more & More
  2. b) who no-show – he shares on FB
  3. c) Mind attractive showing your that product & go to Viral.

 

3.Experiential Marketing for Online E-commerce :

  1. a) Find Targeted Customer & free gift their so that he forget me not.
  2. b) free for some Targeted Customer.

4.Wild Posting for Online E-commerce :

  1. a) Graphics
  2. b) Visuals
  3. c) Images
  4. d) Print Ads

public feeling shock & after they post on social media, & your product are viral.

5.Ambient Marketing for Online E-commerce :

  1. a) online or offline ad showing in there, where more targeted customer presents.

 

6.Grassroot Marketing for Online E-commerce :

Showing my product with a Viral Man/politics/game/brand/etc

  1. Geography
  2. Ethnography
  3. Demography
  4. Psychography

 

  1. Rub-Off Effect for Online E-commerce :

Viral add/poet/song/dialog is changing Duplicate by my product/brand ad.

 

Online E-commerce 10 Ideas link

https://www.youtube.com/watch?v=Vf9E07v-3Nc

1. Key Strengths of Market Plase

2. Look For the level and Quaily of your competitor.             Look his

1) strength? 2) Quality? 3) Level?               Behavior of Competitor

1) Pricing 2)Product Rang 3) Policies 4) Shipment 5) Discounts

3. Presentation & Catalogue Catches The EyeBall Attention

  • Product upload like live view.
  • Full information on Products.

4) Merchant Support Service

1) Study what is say my Marchent or customer & not Solve him only. Also, Solve my Service System more Upgrade.

 

5) Margins, Fee & ROI

  1. Marjins ?

2) Fee a) Return b) Cancellation Policies c) Product Unailable

  1. ROI – a) Visibility b) Sales

 

6) Shipping Charge & Mechanism,

1) Home delivery by my delivery man or dealers, 2) wholesale to reseller but return charge flip cart earn 10%, what do we do?

 

7) System Access & Control

  1. Maximum& minimum Number of listing control.
  2. Restriction On Selling in Specific Region.
  3. Access Provided to Customer Data.

8) Payment Mechanism

The product is selling full not waste any product. So that buy some which sale in 1-7 days. If online advance pay any customer & return product by 10% cut & Refund to the customer from 7 to 30 days.

9) Return & Refunds

  1. a) Fake order b) Defective product delivery which is rules for this? c) if any customer Goods Return back 25% cut his money & after used product no return but affected goods can return by cutting 10%.

 

10) Dispute Relation Process

It is a deed with B2B & B2C Business about every order place by click on Terms & Condition.

written by Wali Muhammad

Posted on

BD-NEWS of WALIBAZAR

BD-NEWS of WALIBAZAR

BD-NEWS of WALIBAZAR

BD-NEWS:

In the summer, children appear on the skin red rashes. It’s called Hit Rash. Why is Hit Rash? How to deal with him?

1) Do not charge children’s powder. Powder causes the secretion of secretion to be stopped. So, without getting the way to sweat, the child’s skin becomes reddish in the red skin. In many cases, the mother did not know the problem by applying hazardous powder and resolving the problem.

2) Various folds of the skin such as the arms, throat, groin, etc. are sweated to heat rash.

3) In most cases, the top rash of the upper part of the skin, ie epidermis. But in some cases, the inner part of the skin can be reached up to the Dermis. In that case, consult a doctor.

4) Kids wear light cotton dresses.

5) If the children keep long diaphragm in the summer, then the hip rash trend increases in the adjoining area.baby food

6) If you have a little cloud, or in the evening, many mothers wear thick clothes for kids. This is also one of the reasons for the hit rash. If the sweat is dry, and if you keep the skin clean, sweat can not get hit, even the heat rash is not possible.

7) A small child, who licks most of the time, has the tendency to become a nappy rash and a hit rash. Do not keep them unnecessarily covered with cloth or cloth.

8) To keep the body healthy, as well as to keep the body healthy, Phy (proportional hydrogen) balance in the skin of the skin to feed more liquids and water.

9) It is good to get rid of children in the sunshine during the summer. Especially, if you do not need to be up to four and a half to four in the morning, do not go outside.

10) Meth Aftershave Lotion or Calamine Lotion can also be added to reduce irritation of hit rash.

BD-NEWS:  2026 World Cup in the US-Mexico-Canada   

In the FIFA Congress, on Wednesday, Africa was voted as the host country to win the African country, three North American countries. It gets 134 votes. Morocco, 65 countries to Africa.

Earlier in 1970 and 1986, the World Cup was in Mexico. The 1994 event was held in the United States. And in 2015, the women’s football World Cup is in Canada.

2026 will be the biggest event in the World Cup history. 48 countries will play for the first time. The 34-day tournament will be a total of 80 matches.

The 23rd World Cup will be held in 16 cities. Of these 10 places in the United States, The remaining 6 will be shared between Canada and Mexico. The finals will be held in New York’s 84th-953-meter-wide stadium.

Russia begins the World Cup on Thursday And the next show will be in Qatar in 2022. BD-NEWS

Posted on

Building Materials in walibazar, Dhaka.

Building Materials in walibazar, Dhaka.

Building Materials in walibazar, Dhaka.

ভূমিকাঃ ন্যানোপ্রযুক্তি (ন্যানোটেকনলজি বা সংক্ষেপে ন্যানোটেক) পদার্থকে আণবিক পর্যায়ে পরিবর্তন ও নিয়ন্ত্রণ করবার বিদ্যা।ন্যানোটেকনোলজি বা ন্যানোপ্রযুক্তিকেসংক্ষেপে ন্যানোটেক বলা হয়। ন্যানোটেকনোলজি পদার্থকে আণবিক পর্যায়ে পরিবর্তন ও নিয়ন্ত্রণকরার বিদ্যা। [১]সাধারণত ন্যানোপ্রযুক্তি এমন সব কাঠামো নিয়ে কাজ করেযা অন্ততএকটি মাত্রায়১০০ ন্যানোমিটার থেকে ছোট।ন্যানোপ্রযুক্তি বহুমাত্রিক, এরসীমানা প্রচলিত সেমিকন্ডাকটর পদার্থবিদ্যা থেকে অত্যাধুনিক আণবিক স্বয়ং-সংশ্লেষণ প্রযুক্তি পর্যন্ত; আণবিক কাঠামোরনিয়ন্ত্রণ থেকে নতুন বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন ন্যানোপদার্থের উদ্ভাবন পর্যন্ত বিস্ত্রৃত। রিচার্ড ফাইনম্যানকে ন্যানোপ্রযুক্তির জনক বলা হয়। বিবরণঃ ন্যানোপ্রযুক্তির ব্যবহার চিকিৎসাবিজ্ঞান , ইলেকট্রনিক্স , শক্তি উৎপাদনসহ বহু ক্ষেত্রে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনতে পারে। অপরদিকে পরিবেশেরউপর এর সম্ভাব্য বিরূপ প্রভাব নিয়েও সংশয় রয়েছে।তারপরও পৃথিবীর বহু দেশে ন্যানোপ্রযুক্তিনিয়ে ব্যাপক গবেষণা চলছে। ইতিহাসঃ আণবিক গিয়ার, নাসার কম্পিউটার সিমুলেশন। ১৯৫৯ সালের২৯ জানুয়ারিরিচার্ড ফাইনম্যান ক্যালিফোর্নিয়া ইন্সটিটিউট অফ টেকনোলজিতে অনুষ্ঠিত আমেরিকান ফিজিক্যালসোসাইটির এক সভায় There’s Plenty of Room at the Bottom শীর্ষক এক বক্তৃতা দেন। এই বক্তৃতাটিই সর্বপ্রথম ন্যানোপ্রযুক্তির ধারণাদেয়। ১৯৮৯ সনের নভেম্বরের ৯ তারিখ ন্যানোটেকনলজির জন্য একটা অন্যতম স্মরণীয় দিন হিসবেবিবেচিত হবে। এই দিনে ক্যালিফোর্নিয়ার IBM এরAlmaden Research Centerএ DonEigler এবং Erhard Schweizer ৩৫ টি Xenon অণু দিয়ে IBM এর লগোটি তৈরি করেছিলেন। সেইদিনই প্রথমঅণুকে ইচ্ছেমত সাজিয়ে পছন্দমত কিছু তৈরি করা সম্ভব হয় মানুষের পক্ষে।এইদিনইপ্রথম মানুষ প্রকৃতির সবথেকে গুরুত্বপূর্ণভিত্তি অণুরকাঠামোকে ভাঙতে সক্ষম হয়েছিল। অণুর গঠনকেইচ্ছেমত তৈরি করেঅনেক কিছু করা সম্ভব। এক বিশাল সম্ভাবনার দ্বারমানুষের সামনে উন্মোচিতহল। শুধুমাত্র অণুর কাঠামোগত পার্থক্যহবার কারণেইকয়লা এত সস্তাআর হীরক এত দামী। দুটিজিনিসের মূলউপাদান হল কার্বণ। শুধু মাত্র অণুর গঠনের পার্থক্যের কারণে হীরক পৃথিবীর সবথেকে শক্ত দ্রব্য আরকয়লা কিংবা পেন্সিলের শীষ নরম। গুনাগুনঃ ১৯৯৯ সনে Cornell বিশ্ববিদ্যালয়ের Wilson Ho এবং তার ছাত্র HyojuneLee অণুকে জোড়া লাগানোর প্রক্রিয়া প্রদর্শন করেন।এতদিন পর্যন্ত অণু- পরমাণুর সংযোগ শুধু মাত্র রাসয়নিকবিক্রিয়ার মাধ্যমেই সংগঠিত হত।কিন্তু ন্যানোটেকনলজিরমাধ্যমে অণু- পরমাণুকে ভেঙে কিংবা জোড়া লাগিয়ে অনেককিছুই করা সম্ভবনার দ্বার খুলে দিল। ন্যানোপ্রযুক্তি কী? ন্যানো একটি মাপার একক। ম্যাট্রিক একক এর শুরুটা হয়েছিল ১৭৯০ সনেফ্রান্সে। ফ্রান্স জাতীয় পরিষদ এককগুলিকে সাধারণ করবার জন্য কমিটি গঠন করে এবং তারাই প্রথমডেসিমাল কিংবা দশ একক এর ম্যাট্রিক পদ্ধতির প্রস্তাবকরেন। এবংদৈর্ঘ্যের এককএক মিটার এরসূচনা করেন। তারাপৃথিবীর পরিধির ৪০,০০০,০০০ ভাগের এক ভাগকে এক মিটার বলেন। মিটার শব্দটি গ্রিক শব্দ metron থেকেএসেছে যার অর্থ হল, পরিমাপ।BUILDING'S MATERIALS এছাড়ামিটার এর ১০০ ভাগের এক ভাগকে সেন্টিমিটার বলা হয়।১৭৯৩ সনে ফ্রান্সে আইন করেতা প্রচলন করা হয়। ১৯৬০সনে এই মিটার এরসংজ্ঞা পরিবর্তন করা হয়। উপকারিতাঃ ক্রিপটন ৮৬ এর কমলারঙের রেডিয়েশন এর তরঙ্গদৈর্ঘ্যের ১,৬৫০,৭৬৩.৭৩ ভাগের এক ভাগকে মিটারবলা হয়। ১৯৮৩সনে মিটার এর সংজ্ঞা পুনরায়পরিবর্তিত করা হয়, বর্তমানসংজ্ঞা অণুযায়ী, বায়ুশুন্যে আলোর গতির ২৯৯,৭৯২,৪৫৮ ভাগের এক ভাগকে মিটার বলা হয়। এই মিটার এর১,০০০,০০০,০০০ (১০০ কোটি) ভাগের এক ভাগকে ন্যানোমিটার বলা হয়।ন্যানো শব্দটি গ্রিকnanos শব্দ থেকেএসেছে যার অভিধানিকঅর্থ হলdwarft কিন্তু এটি মাপের একক হিসাবে ব্যবহৃত হচ্ছে। আর এই ন্যানোমিটারস্কেলে যে সমস্ত টেকনোলজি গুলিসর্ম্পকিত সেগুলিকেই বলে ন্যানোপ্রযুক্তি। মিটার এককটিআমাদের দৈনন্দিন জীবনেরসাথে জড়িত। বাড়িঘরআসবাবপত্র সবই আমরা মাপি এই মিটার এককে। দ্বিতীয়বিশ্বযুদ্ধের আগ পর্যন্ত মিলিমটার স্কেলে যন্ত্রপাতিরসূক্ষতা মাপা হত।মিলিমিটারএর ছোট কোন কিছু নিয়ে চিন্তা ভাবনার অবকাশ ছিলনা। কিন্তু দ্বিতীয়বিশ্বযুদ্ধ শেষ হবার পরে, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে একনতুন যুগেরসূচনা হল। সেমিকণ্ডাকটর তার পথযাত্রা শুরুকরল। আরএরশুরুটা হল, ট্রানজিস্টর আবিষ্কার দিয়ে। তখনমাইক্রোমিটার একক দিয়ে আমাদের চিন্তভাবনা শুরু হল। বলা যায় যাত্রা শুরু হল, মাইক্রোটেকনোলজির। এরপরে টেকনোলজিএগুতে লাগলোপ্রচন্ড গতিতে। নানা জিনিসপত্র, যার মধ্যে টেলিভিশন, রেডিও, ফ্রিজ ইত্যাদি ইত্যাদি। আর তা কিভাবেআরো ছোটকরা যায় তা নিয়েইপ্রচন্ত যুদ্ধ শুরু হয়ে গেল।কোন কম্পানিকত ছোট আকারের এইসমস্ত ভোগ্য জিনিস আমাদের কাছেপৌঁছাতে পারবে, তার প্রতিযোগিতা শুরু হল। আর এই সমস্ত ব্যাপারটা সম্ভবহল, সেমিকণ্ডাকটর সংক্রান্ত প্রযুক্তিরকল্যাণে। প্রথমদিকের রেডিও কিংবা টিভির আকারদেখলে আমাদেরএখন হাসি পাবে। এত বড়বড় জিনিস মানুষ ব্যবহার করত কিভাবে? সেই প্রশ্নটি হয়তোএসে দাড়াবে।কিন্তু এখন বাজারে দেয়ালে ঝুলাবার জন্য ক্যালেন্ডারেরমত পাতলা টিভি এসেছে। সামনে হয়তোআরো ছোটআসবে। ১৯৮০ সনে IBMএর গবেষকরা প্রথম আবিষ্কার করেন STM(Scanning Tunneling Microscope) এই যন্ত্রটি দিয়ে অণুরগঠন পর্য়ন্ত দেখা সম্ভব। এইযন্ত্রটির আবিষ্কারই ন্যানোপ্রযুক্তিকেবাস্তবে রূপদিতে সক্ষম হয়েছে। কিভাবে কাজকরে এই STM। এইযন্ত্রে খুব সূক্ষপিনের মত সুচাল টিপ আছে এবং তা যখন কোন পরিবাহী বস্তুর খুবকাছে নিয়ে যাওয়া হয়, তখনতা থেকে টানেলিং নামে খুব অল্প পরিমাণে বিদ্যুৎ পরিবাহিত হয়।এবং এইবিদ্যুৎ এর পরিমাণ দিয়েই সেই বস্তুটির বাহিরেরস্তরেরঅণুর চিত্রতৈরি করা হয়। তবে এই STM এর ক্ষেত্রে যা দেখতে চাইবোতাকে অবশ্যই বিদ্যুৎ পরিবাহী হতেহবে। কিন্তুবিদ্যুৎ অপরিবাহীর অণুর গঠন কিভাবে দেখা যাবে? না মানুষ বসে থাকেনি। অসম্ভবকে সম্ভবকরেই মানুষ যেভাবে এতদূর এসেছে, তেমনি ভাবে এই অসম্ভবকে সম্ভব করা গেল AFM দিয়ে। STM এরক্ষেত্রে টানেলিংবিদ্যুৎ দিয়েকাজ করা হয় এবং AFM দিয়ে সূক্ষ্মপিন দিয়েঅণুর গঠন দেখা সম্ভব। টপ টু ডাউন ও ডাউন টু টপ ন্যানোটেকনোলজির ক্ষেত্র দুটিপ্রক্রিয়া আছ।একটি হল উপর থেকে নীচে(Topto Bottom)ও অপরটি হল নীচ থেকে উপর(Bottom to top)। টপডাউন পদ্ধতিতে কোন জিনিসকেকেটে ছোট করে তাকে নির্দিষ্টআকার দেয়া হয়। এই ক্ষেত্রসাধারণত Etching প্রক্রিয়াটি সর্ম্পকিত।আর ডাউনটুটপ হল ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র আকারের ছোট জিনিসদিয়ে বড় কোন জিনিস তৈরি করা। উপসংহারঃ আমাদেরর বর্তমানইলেক্ট্রনিক্স হল, টপডাউন প্রযুক্তি। আরন্যানোটেকনোলজির হল, বটমটপ প্রযুক্তি।ন্যানোমিটার স্কেলেক্ষুদ্র ক্ষুদ্র বস্তুর উপাদান দিয়ে তৈরি করা হবে এই ন্যানোপ্রযুক্তিতে। সহজে বুঝবার জন্যএকটা উদাহরণ দেয়া যাক।মনে করুন, আপনার একটাবিশেষধরনের DNA এর প্রয়োজন। সুতরাং বটমটপ প্রযুক্তিতে, সেই DNA এর ছোট ছোট উপাদানগুলিকে মিশ্রন করে সেইকাঙ্খিত DNA টি তৈরি করা হবে। তবে নানোপ্রযুক্তিতে শুধু মাত্র বটমটুটপ প্রযুক্তিই নয়, বরং টপটুবটম প্রযুক্তি ব্যবহার করে এই দুটির সংমিশ্রন করা হবে। আমরা যারাকম্পিউটার ব্যবহার করছি তারাজানি যে, প্রতি বছরই কম্পিউটার এরমূল্য কমছে।প্রতিবছরই আগেরতুলনায় সস্তায় আরোভাল কার্যক্ষমতার কম্পিউটার পাওয়া যাচ্ছে। আসলে এই কম্পিউটার এর সাথেও ন্যানোটেকনোলজি সম্পর্কিতরয়েছে। কম্পিউটার এরভিতর যেপ্রসেসর আছে, আপনারা প্রায় সবাই ইন্টেল প্রসেসর এর নাম শুনে থাকবেন? এই প্রসেসর এর ভিতরে রয়েছেঅসংখ্য ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ন্যানোমিটার স্কেলের সার্কিট। আর তাতে ব্যবহৃত হচ্ছে ন্যানোটেকনলজি। ইন্টের প্রসেসরে, সিলিকন এর উপর প্যাটার্ণকরে সার্কিটবানান হয় তার বর্তমান সাইজ হল ১০০ ন্যানোমিটার। সামনের তিন বছরে এর আকার হবে ৭০ ন্যানোমিটার। এবংসাতবছরে এর আকার হবে৫০ ন্যানোমিটার। ইন্টেল আশা করছে যে ২০১০ সনে তারা ৩০ ন্যানোমিটার সাইজে নিয়ে আনতেপারবে। আর আজকের থেকে তখনএই প্রসেসর এর আকার অর্ধেক হয়ে আসবে। সেই দিনটা খুব বেশি দূরে নয়যেদিন আপনার মোবাইলটিকাজ করবে কম্পিউটারেরমত। (বর্তমানেইএই ধরনের কিছু মোবাইল বাজারে এসেছে)। এছাড়ারয়েছে কম্পিউটারের হার্ডডিস্ক। এই হার্ডডিস্কের তথ্য সংরক্ষণেরক্ষমতা দিন দিন বড়ছে। এই হার্ডডিস্কেও ব্যবহৃত হচ্ছে ন্যানোটেকনলজি। এখন বাজারে ৪ টেরাবাইটের হার্ডডিস্ক পাওয়া যাচ্ছে। অথচ এই ব্যাপারটা আজ হতে ১০ বছর আগেও ছিল কল্পনার বাহিরে। স্থির বিদ্যুৎ ও তার কারসাজি ন্যানোটেকনলজি দিয়ে সার্কিট বানানযতটা সোজাবলে মনে করা হয়, ব্যাপারটা ততটা সোজা নয়। সেইখানে প্রধান যেবাধা এসে দাড়াবে তা হল, স্থির বিদ্যুৎ। শীতের দিনেবাহির থেক এসে দরজার নবে হাত দিয়েছেন? এমনি সময়হাতে শক লাগলকিংবাঅন্ধকারে সুয়েটার খুলতে গেছেনএমনি সময় বিদ্যুৎ এর মত কণা সুয়েটারে দেখাগেল। নতুননতুন দ্রব্য এর সূচনা করছে এবংসেই সাথে ব্যবসায়িক সুযোগের দ্বার উন্মোচন করছে। by Muntaha Moon

Posted on

Online shopping in Dhaka, wali bazar.com

Online shopping in Dhaka, wali bazar.com

Online shopping in Dhaka, wali bazar.com

ভূমিকাঃ অনলাইন ব্যবসার বিষয়টি দিনে দিনে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। শুধু জনপ্রিয়ই নয়, অনলাইন ব্যবসার মাধ্যমে মানুষ নিজের নিশ্চিত সুন্দর এবং সফল একটি ক্যারিয়ারও দেখতে পাচ্ছে। অনলাইনে নির্দিষ্ট কোনো ব্যবসায় আজ আটকে নেই কেউ। রোজ নতুন নতুন আইডিয়া নিয়ে অনলাইনে ব্যবসা করতে নামছে অনেকেই। যারা অনলাইনে ব্যবসা করতে নামছেন, তাদের অধিকাংশই নিজের ব্যবসাকেই নিজের ক্যারিয়ার হিসেবে ধরেই নামছেন। বিবরনঃ বিভিন্ন ধরনের ব্যবসা হচ্ছে অনলাইনে, কেউ ফেসবুক পেজে, কেউ বড় পরিসরে নিজস্ব ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ব্যবসা করছেন, কেউ বা আবার নির্দিষ্ট কিছু বড় ওয়েবসাইটের অধীনে চুক্তিভিত্তিক কাজ প্রদানের ব্যবসাও করছেন। তাই সময়টা এখন আসলেই অনলাইন ব্যবসার। উপকারিতাঃ এবারের ক্যারিয়ারের মূল ফিচারে তুলে ধরা হলো সময়ের অন্যতম ৫টি সেরা অনলাইন ব্যবসা। যেই ব্যবসাকে আপনি আপনার ক্যারিয়ার হিসেবে নিতে পারেন স্বাচ্ছন্দ্যেই। লিখেছেন মাহবুব শরীফ ই-কমার্স এই মুহূর্তে অনলাইনের সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং বহুল ব্যবহূত ব্যবসাই হচ্ছে ই-কমার্স। অনলাইনের মাধ্যমে কেনা-বেচা। শপিং মলে গিয়ে শপিং করার পুরোপুরি ফ্লেভার না থাকলেও গ্রাহকরা অনলাইনে নিজের পছন্দমতো প্রয়োজনীয় পণ্যের অর্ডার করছে, বাসায় বসেই ডেলিভারি পাচ্ছে। ইচ্ছে হলে পরবর্তীতে পণ্যটি ফেরত দেওয়া কিংবা বদলানোর সুযোগও থাকে। আমাদের দেশেও এখন অনেকগুলো ই-কমার্সের ব্যবসা রয়েছে। তবে পার্শ্ববর্তী দেশগুলোতে ই-কমার্সের ব্যবসাটি যতটা জনপ্রিয় হয়েছে, সেই তুলনায় আমাদের দেশে কিছুই না। এর বড় কারণ হলো মার্কেটিং, পণ্যের গুণগত মান নিশ্চয়তাসহ গ্রাহক সেবা। কিছু কিছু অনলাইনের দূর্নীতির জন্য অনেকেই অনলাইনে পণ্য অর্ডার করতে ভয় পান। তবে হ্যাঁ, ই-কমার্স মার্কেটের বিকল্প নেই ভবিষ্যতে। তাই একটি গ্রাহকের সব ধরনের প্রয়োজন মেটাতে, তার সেবা নিশ্চয়তা দিতে যা যা করণীয় এর সব কিছু যদি আপনি নিশ্চিত করতে পারেন। পাশাপাশি এর মার্কেটিংটাও যদি আপনি বড় আকারে করতে পারেন। তাহলে অবশ্যই আপনি এই পেশায় সফল একজন হতে পারবেন। ইতিহাসঃ এই ব্যবসাকে ক্যারিয়ার হিসেবে ধরে অনেক দূর এগিয়েও যেতে পারবেন। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এমন একটি ব্যবসা, যেখানে নিজের কোনো পূঁজি থাকার একদমই প্রয়োজন নেই। যেমন ধরুন গত ৩ দিন ধরে আপনার ঠান্ডা জ্বর। ডাক্তারের কাছে গেলেন চিকিত্সার জন্য। ডাক্তার আপনাকে কিছুক্ষণ দেখে বললেন, কিছু মেডিকেল টেস্ট করা লাগবে। টেস্টের ফলাফল না দেখে আমি কোন ঔষধ দিতে পারব না। সাথে বলে দিলেন এবিসি ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে টেস্টগুলো করাতে। ডাক্তার কেন এবিসি ডায়াগনস্টিক সেন্টারের নাম বললেন? তিনি তো অন্য কোন ডায়াগনস্টিক সেন্টারের নামও বলতে পারতেন। এর কারণ হলো—পূর্ব থেকে ডাক্তারের সাথে এবিসি ডায়াগনস্টিক সেন্টারের চুক্তি রয়েছে, যেখানে বলা ছিল- ডাক্তারের রেফারেন্সে যত রোগী এই ডায়াগনস্টিক সেন্টারে আসবেন তাদের প্রত্যেকের কাছ থেকে প্রাপ্ত টাকার উপর নির্দিষ্ট হারের কমিশন ডাক্তারকে দেওয়া হবে। ডাক্তার এই যে রোগীকে একটি রেফারেল দিয়ে নির্দিষ্ট অর্থ আয় করলেন এটিই উক্ত ডাক্তারের অ্যাফিলিয়েট আয়। অন্যের পণ্য বা সেবা প্রচার এবং প্রচারণার মাধ্যমে বিক্রি করে দেওয়া বা বিক্রি করতে সাহায্য করা এবং সেটা থেকে নির্দিষ্ট হারে কমিশন গ্রহণ করা হচ্ছে একজন মার্কেটারের অ্যাফিলিয়েশন আয়। আর এই পুরো প্রক্রিয়াটাই অ্যাফিলিয়েশন মার্কেটিং। ইন্টারনেটের মাধ্যমে পণ্য বিক্রি করার যত উপায় আছে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং হচ্ছে তন্মধ্যে অন্যতম কার্যকরী মাধ্যম। এই মাধ্যমকে ব্যবহার করে ইন্টারনেটের মাধ্যমে কোনো প্রতিষ্ঠানের পণ্যের প্রচার চালিয়ে আয় করতে পারেন ইন্টারনেট মার্কেটাররা। উপকারিতাঃ সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলো অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংয়ের মাধ্যমে পণ্য বিক্রি করতে চান সেগুলো হলো— ১. বিশ্বব্যাপী দ্রুত পণ্যের প্রচারণার জন্য, ২. বিক্রি বাড়ানোর জন্য, ৩. পণ্য বা সেবার মার্কেটিং খরচ কমানোর জন্য, ৪. পণ্য বা সেবার ব্র্যান্ডিং বাড়ানোর জন্য। ওয়েব ডিজাইনিং আপনার যদি ওয়েব ডিজাইন এবং HTML সম্পর্কে জ্ঞান থাকে তাহলে ওয়েব ডিজাইন করার কাজটিকে ব্যবসা হিসেবে নিতে পারেন। এখন এমন অনেকে অনলাইনে ব্যবসা করছেন যারা অচিরেই অয়েবসাইট খুলতে আগ্রহী। যাদের ওয়েবসাইট আছে, তাদেরও অনেকের সাইট অনেক দূর্বল ডিজাইনের কারণে আকর্ষনীয় হচ্ছে না। অনলাইনে থিম ফরেস্ট, প্রিমিয়াম সাইটসহ এ ধরনের অনেক ই-কমার্স সাইট আছে যেখানে আপনি আপনার বানানো ওয়েব টেমপ্লেটটি কমিশনের ভিত্তিতে বিক্রি করতে পারবেন। একই টেমপ্লেট বহুবারও বিক্রি হয় এসব সাইটে। তাই এই বাজারটি ধরার এখনই মুখ্য সময়। মার্কেট প্লেস থেকে আয় অনলাইনে ফাইভআর-এর মতো অনেক সাইট রয়েছে যেখানে আপনি যে ধরনের কাজ জানেন সেই কাজটিই করতে পারবেন। একজন কার্টুনিস্ট থেকে শুরু করে, ছবি এডিট, ডিজাইনসহ যত ধরনের অনলাইনভিত্তিক কাজ রয়েছে সবই করতে পারবেন। আপনি শুধু আপনার কাজের কিছু পোর্টফোলিও আপলোড করে রাখলেই আপনার কাজ দেখে আপনার কাছ থেকে তার কাঙ্ক্ষিত কাজটি করিয়ে নেবে। এখানে নিয়মিতই কাজ করা যায়, একে ব্যবসা হিসেবে নিয়ে কাজ করছে অসংখ্য লোকজন। ই-বুক লেখা। উপসংহারঃ অনেক লেখক আছেন যারা বই লেখেন কিন্তু প্রকাশকরা তাদের বই প্রকাশ করছেন না বলে থেমে আছেন। মানুষ কিন্তু এখন কাগজের বইয়ের বাইরে অনলাইনে বই পড়তে প্রকটভাবে আগ্রহী হচ্ছে। খুবই কম খরচে ই-বুক হিসেবে নিজের লেখা প্রকাশ করতে পারেন। নিজের মেধাকে প্রকাশিত করে পরিচিতি বাড়াতে পারেন সহজেই এই পেশার মাধ্যমে। ঠিকমতো পরিচালনা করতে পারলে এর বাজার এখন অনেক বড়। 1) Become a supermarket and get it after measuring up to 25% reduction in price. 2) Deliveries within 1 hour of the specified time. The products sold are refundable. 3) Special offers of “Wow offer” for up to 50% discount for some product on every lucky day. 4) You get special discounts on both Save your Time & Tk. 5) Delivery or Shipping cost is fully free in Tha Dhaka City. 6) The more you buy then more you earn points by payment advance. 7) There are included VAT & others packaging tax so that save your Time & Tk up to 10% more. 8. Anybody can save your Time & Tk by getting a “RESHON D-CARD” up to 12% discount more. 9. We check and refresh every order items, so you will get 100% Halal & Fresh Food at a low price from the super shop for save your Time & Tk. 10. WaliBazar.Com is a project of WALI MUHAMMAD FOUNDATION LIMITED so you can trust us about 100% confidence.  by Ćhäîñ Śmökêř